নতুন সুবিধা পাচ্ছেন রিজেন্ট এয়ারের যাত্রীরা

ট্রাভেল নিউজ বিডিঃ বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়াগামী যাত্রীদের জন্য সুখবরই বটে! রিজেন্ট এয়ারওয়েজ শুধু সাশ্রয়ী নয়, এবার তারা স্বস্তির বিষয়টিও নিশ্চিত করছে যাত্রীসেবায়।

যেন তারা সুর ধরে রাখার চেষ্টা করছে লোগোতে লেখা প্রতিশ্রুতিটির- ‘প্রতিটি খুটিনাটিতে গুরুত্ব’।

রিজেন্টের ফ্লাইট এখন সপ্তাহে ছয়দিন দু’দেশের মধ্যে যাতায়াত করছে। শনিবার বাদে প্রতিদিনই থাকছে সফরের সুযোগ।

বাংলাদেশের শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নতুন সুবিধা পাচ্ছেন রিজেন্ট যাত্রীরা। এখন প্লেনে উঠবেন সরাসরি বোর্ডিং ব্রিজ  ব্যবহার করে, আগের মতো বাসে চড়ে প্লেন পর্যন্ত যেতে হবে না।

রিজেন্ট সাশ্রয়ী বলে যাত্রীসংখ্যা তাদের অনেক। এত যাত্রীর তুলনায় আগে প্লেনসংখ্যা কম ছিল। সে সমস্যাটিও এখন কেটেছে। জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে তারা এখন যাতায়াতের দিনসংখ্যা যেমন বাড়িয়েছে, তেমনি এয়ারক্রাফটের সংখ্যাও বাড়িয়েছে। তাই সময়ানুবর্তিতা রক্ষাও সম্ভব হচ্ছে আগের চেয়ে অনেক ভালো- জানাচ্ছেন রিজেন্টের নিয়মিত যাত্রীরাই।

সফরের সময়টিতে রিজেন্টের দেওয়া খাবারের প্রশংসা আগে থেকেই ছিল, সেটি এখনো অব্যাহত রয়েছে। বেশ কিছু উপাদেয় ও স্বাস্থ্যসম্মত খাবার রাখা হয় তাদের মেন্যুতে।

এছাড়া যেহেতু মালয়েশিয়া এসে সরাসরি কেএলআইএ-ওয়ান এয়ারপোর্টে নামতে পারেন রিজেন্ট যাত্রীরা, তাই ইমিগ্রেশনের ঝামেলাও তাদের সেভাবে পোহাতে হয় না।

শুক্রবার (০৫ জুন) ভোরে রিজেন্টে কেএলআইএ-ওয়ান এয়ারপোর্টে নামার সময় ক্রুরা কিছু আকর্ষণীয় প্যাকেজের কথাও জানালেন। সাশ্রয়ে ও স্বাচ্ছন্দ্যে থাইল্যান্ডসহ বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানে সফরের সুযোগ রয়েছে এসব প্যাকেজে।

২১ মে ঢাকায় অনুষ্ঠিত তিনদিনের আন্তর্জাতিক পর্যটন মেলায়ও রিজেন্টের প্যাকেজগুলো আগতদের আকর্ষণ করেছিল।

ঢাকা-সিঙ্গাপুর-ঢাকা, ঢাকা-ব্যংকক-ঢাকা, চট্টগ্রাম-ব্যংকক-চট্টগ্রাম, ঢাকা-কলকাতা-ঢাকা, চট্টগ্রাম-কলকাতা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-কুয়ালালামপুর-ঢাকা ট্যুরের প্যাকেজগুলো ইতোমধ্যে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে বলে কর্মকর্তারা জানান।

তারা জানান, রিজেন্টের হলিডে প্যাকেজের প্রতি পর্যটকদের আগ্রহ বেশি।

বিশেষ করে, ঢাকা ও চট্টগ্রাম থেকে ব্যাংকক ও পাতায়ায় ৫ দিন-৪ রাতের ট্যুর-প্যাকেজটি অনেকেই পছন্দ করেছেন।